BCS Medical Check UP Guideline

BCS Medical Check UP Guideline

ভুল চুক ক্ষেমিবেন…….. নিচের ছবি গুলান দেইখেন….
#মেডিকেল_টেস্ট

 

নির্ধারিত দিনে মেডিকেল চেক আপের জন্য প্রার্থীদের কিছু কাজ সেরে রাখতে হবে আগে আগেই। সেদিন মেডিকেল বোর্ডের নিকট কিছু রিপোর্ট, সরকারি কোষাগারে ৫০ টাকা জমা দিয়ে পাওয়া চালান এর মূলকপি জমা দিতে হবে।

আমি আজ (২২ নভেম্বর ২০১৬) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়েছিলাম এক্স-রে এবং চোখ পরীক্ষা করাতে। আর সোনালী ব্যাংক এর নিউ মার্কেট শাখায় গিয়েছিলাম ৫০ টাকা জমা দিয়ে চালান ফর্ম সংগ্রহ করার জন্য।

সঙ্গে করে একটা কলম, খাতা/শক্ত বোর্ড জাতীয় কিছু একটা নিয়ে যাবেন। প্রবেশপত্রের স্বাক্ষরটি আয়ত্ত করে যাবেন। এক্স-রে রিপোর্ট একদিনে পাবেন না। দুইটা দিন ডেডিকেট করুন এইসবের পিছনে।

সতর্কবাণী:
ঢাকা মেডিকেলে চক্ষু পরীক্ষার জন্য কেউ যাবেন না। আমি আউটডোর থেকে ১০ টাকা দিয়ে টিকেট কেটে চক্ষু বহির্বিভাগে অনেক সময় নষ্ট করে রেসিডেণ্ট সার্জনের কাছ থেকে না-বোধক উত্তর পেয়ে চলে এসেছি। উনি ৩৩ বিসিএসে কয়েক হাজার রিপোর্ট দিয়ে ক্লান্ত; সেই ক্লান্তি এখনো দূর হয় নাই। উনার বক্তব্য মতে বাইরে কোনও সহকারী/সহযোগী/অধ্যাপক-কে দেখিয়ে রিপোর্ট নিয়ে নেওয়াই ভাল। উনি কোনমতেই দিবেন না এবার।

এক্স-রে
(X-ray রিপোর্ট ১ মাসের বেশি পুরনো না হওয়াই ভাল, সুতরাং মেডিকেল টেস্ট এর তারিখের সাথে সমন্বয় করে রিপোর্ট করান)।

এক্স-রে যদি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে করাতে চান তাহলে নিচের নির্দেশাবলি অনুসরণ করুন। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাশে অবস্থিত বহির্বিভাগে গিয়ে ১০ টাকা দিয়ে একটা টিকেট কাটুন। টিকেটে নিজের নাম, আর বয়স লিখে এরপর মেডিসিন বহির্বিভাগে (একই বিল্ডিংএর নিচতলায়) ঢুকতেই রেজিস্ট্রেশন কাউন্টার পাবেন। সেখানে টিকেটটি দিয়ে বলবেন বিসিএস প্রার্থী- এক্স-রে করতে আসছি। উনি টিকেটে রেজিস্ট্রেশন নম্বর লিখে দিবেন এবং বলবেন ৫/৬ নং ঘরে গিয়ে মেডিকেল অফিসারকে দেখান। মেডিকেল অফিসার Adv: CXR P/A View for BCS লিখে নার্সেস ডিউটি রুমে পাঠাবেন এক্স-রের রিকুইজিশন ফর্ম পূরণ করে আনার জন্য। একটা কাগজে আপনার নাম, বয়স আর এক্স-রের কথা লিখে আবার মেডিকেল অফিসারের রুমে আসবেন। উনি দস্তখত-সীল দিয়ে আপনাকে রেডিওলজি এবং ইমেজিং বিভাগে যেতে বলবেন।

আউটডোর এর নিচ তলাতেই এই বিভাগ। আপনাকে সেখানে গিয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে ২০০ টাকা জমা দিতে হবে। সেখান থেকে একটা মানি রিসিট পাবেন। সেটার উপরে সিরিয়াল নং (এই সিরিয়াল নং ই এক্স-রে ফিল্মের উপরে বাম কোনায় ID হিসেবে থাকবে) লেখা থাকবে। এরপর ৪ নং ঘরে যাবেন এক্স-রে করাতে। যেয়ে বলতে হবে বিসিএস এর এক্স-রে করাবেন। তাহলে আপনার নামটা শুদ্ধ করে (ইংরেজিতে) এন্ট্রি করে নিবে। এরপর শার্ট/গেঞ্জি খুলে এক্স-রে বিমের সামনে দাঁড়াবেন। মেয়েদের কোনও কিছু খোলা লাগবে না। ওড়নাটা খোলা লাগতে পারে। এক্স-রে হয়ে গেলে সাথে সাথেই রিপোর্ট পাবেন না, এমনকি ফিল্মও পাবেন না। আধ-ঘণ্টা পর গেলে ফিল্ম পাবেন।
সেটা নিয়ে ১৭ নং রুমে গেলে আসাদ সাহেব নামে এক ভদ্রলোক একটা নমুনা রিপোর্ট ফর্ম আপনাকে দিয়ে ফটোকপি করে আনতে বলবেন। ঢাকা মেডিকেলের লেডিজ হোস্টেলের পাশে ফটোকপির দোকান আছে (২-মিনিটের পথ)। ওখানে রেডিমেড পেয়ে যাবেন আশা করি। সেটা নিয়ে এসে প্রার্থীর নাম, বয়স, লিঙ্গ, Part/Imaged এর ঘরে CXR (Chest X-ray; শুধু CXR লিখলেই হবে। আমি পুরো অর্থ বোঝানোর জন্য বন্ধনীর ভিতর elaboration টা লিখেছি)। রিপোর্ট ফর্মের বাম পাশে Identification Mark এ যেকোনো জন্মদাগ/ তিলের উল্লেখ করবেন। দুইটা চিহ্নের কথা বলা আছে- একটা লিখলেই হবে। তার নিচে আছে Specimen Signature – প্রবেশপত্রের অনুরুপ ৩ টা দস্তখত করে দিবেন। এরপর আসাদ সাহেবের কাছে জমা দিয়ে আসবেন। পরের দিন সকাল ১১ টার পরে রিপোর্ট পাবেন।

সোনালী ব্যাংক/ বাংলাদেশ ব্যাংকে টাকা জমা দেয়া:

ঢাকা মেডিকেলে কাজ আপাত সম্পন্ন করে পলাশীতে গেলাম সোনালী ব্যাংক এ টাকা জমা দিয়ে চালান ফর্ম যোগাড় করতে। কিন্তু বুয়েট শাখায় চালান হয় না। এমনকি কাটাবনের বাজমে কাদেরীয়া শাখায় ও হয় না। আপনাকে যেতে হবে নিউমার্কেট এর ৩ নং গেটের পাশে সোনালী ব্যাংকে। দুইতলায় চলে যাবেন। ঢুকতেই একটা লোক বসে থাকবে হেল্প ডেস্ক নিয়ে। উনার কাছ থেকে চালান ফর্ম নিবেন।

একেক জনের জন্য তিনটা চালান ফর্ম দিবে। মূল কপি/২য় কপি/৩য় কপি।
 উপরে ডানে তারিখ লিখবেন।
 চতুর্থ লাইনে ……….জেলার ডট ডট এ ঢাকা/সংশ্লিষ্ট জেলার নাম এবং ……………শাখায়- এই ডট ডট এ নিউমার্কেট/ প্রযোজ্য শাখার নাম লিখবেন।
 এর পর কোড নং এ ১-২৭১১-০০০০-২৬৮১ লিখবেন।
 নিজে টাকা জমা দিলে যাহার মারফত প্রদত্ত হইল- এই ঘরে নিজ লিখবেন। অন্য কেউ জমা দিলে তার নাম ঠিকানা লিখতে হবে।
 যে ব্যক্তির/ প্রতিষ্ঠানের পক্ষ হইতে এই ঘরে প্রার্থীর নাম, স্থায়ী ঠিকানা+ ৩৫ বিসিএস এর রেজিস্ট্রেশন নং লিখবেন।
 কী বাবদ জমা দেওয়া হইল- এই ঘরে স্বাস্থ্য পরীক্ষা লিখবেন।
 মুদ্রা ও নোটের বিবরণ- এই ঘরে নগদ লিখবেন।
 টাকার অংক- এই ঘরে ৫০/- লিখবেন।
 নিচে টাকা (কথায়): পঞ্চাশ টাকা মাত্র
 আবার তারিখ লিখবেন।
এভাবে তিনটা ফর্মে একই জিনিস পূরণ করে ব্যাংকের ভিতরে যে কাউন্টারে চালান লেখা আছে সেখানে চলে যাবেন। তিনটা ফর্ম একসাথে স্ট্যাপলিং করতে হবে। স্ট্যাপলার ব্যাংকে চালান কাউন্টারেই আছে। প্রত্যেক ফর্মের উল্টোপাশে মোবাইল নম্বর লিখতে হবে। ৫০ টাকা খুচরা নিয়ে যাবেন। দুটো ফর্ম ব্যাংক রেখে আপনাকে একটা দিয়ে দিবে।

ব্যাস… এই হল মেডিকেল চেক আপের আগে আপনার কাজ।

আপডেট (২৩/১১/২০১৬):

X-ray Film: Loot at the top of Left. Carefully match your name, ID, age and Sex

x-ray

মাহমুদুল হাসান মোন্নাফ
স্বাস্থ্য ক্যাডারে সুপারিশ প্রাপ্ত

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s